বিগত কিছুদিন যাবত আইনশৃঙ্খলাবাহিনীর পুলিশ ও র‍্যাব স্বরাষ্ট্রমন্ত্রনালয়ের নির্দেশে মাদক নির্মূলের নামে ক্রসফায়ারে বিভিন্ন মাদক কারবারিদের হত্যা করছে কিন্তু এই হত্যা হওয়া ব্যাক্তিদের মাঝে মাদক ব্যবসার মূল কোন গডফাদার নেই। এখন প্রশ্ন ওঠে, যারা চিন্হিত মাদকের মূল হোতা, যারা ক্ষমতাসীন এবং মাদকের মূলচালান করে থাকে তাদেরকে আইনের আওতায় না এনে না করে চুনোপুঁটিদের হত্যা করলে কি মাদকের আদৌ নির্মূল হবে কি না। এক্ষেত্রে ইয়াবাসম্রাট বর্তমান ক্ষমতাসীন দলের এমপি বদি ইয়াবার আমদানি ও কক্সবাজার সহ সারাদেশে ইয়াবার চালান করে থাকে তাকে কোন প্রকার ধরাছোঁয়ার বাইরে রেখে এই নির্মূল অভিযান কি অন্যকোন উদ্দ্যেশে ও লোকদেখানো কৌশল কি না-সে প্রশ্ন থেকেই যায়। কুখ্যাত ইয়াবাসম্রাট বদি এর বিরুদ্ধে অভিযান সম্পর্কে একাধিকবার সাংবাদিক সহ নাগরিকসমাজ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সহ র‍্যাবের প্রধানের কাছে জানতে চাইলে তারা বলেছে যে বদির বিরুদ্ধে সুনির্দিষ্ট প্রমান নেই। তাহলে কি এটি সাধারণ জনগনের বুঝতে বাকি থাকে যে এসব মাদক নির্মূল এর নামে ক্রসফায়ারে হত্যা শুধু মাত্র লোকদেখানো ও বিএনপির নেতাকর্মীদের হত্যা করার ঘৃনিত কৌশলের অংশ?

গত পরশু রাতে নেত্রকোনার ছাত্রদলের এক নেতাকে ঘরথেকে ডেকে নিয়ে গিয়ে আইনশৃঙ্খলাবাদিনী নির্মমভাবে গুলিকরে হত্যা করে লাশ ফেলে থুয়ে যায় সেই সন্তানের মায়ের আর্তনাদ দেখার কেউ নেই। যেখানে সয়ং রাষ্ট্রের জনপ্রতিনিধি সহ আইনশৃঙ্খলাবাহিনী মাদক ব্যবসার মূলহোতা ও পৃষ্টোপোষকতা সেখানে মাদক নির্মূল এর নামে সাধারন জনগনকে কেন বিচারবহির্ভূত হত্যাকান্ডের শিকার হতে হবে? (দাবি লেখকের)

আজ আওয়ামীলীগ সরকার ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠা করতে ব্যর্থ। না হয় কেন আইন আদালত থাকতেও বিচার ব্যতিত আইন বহির্ভূত হত্যাকান্ডের মাধ্যমে মাদক নির্মূল করতে হবে? বিচারবিভাগ আজ স্বাধীন থাকলে সকল মাদকের মূল হোতাদের সুষ্ঠু বিচারের মাধ্যমেই সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদন্ড দেয়া যেত কেননা আমাদের প্রচলিত মাদকদ্রব্য নির্মূল ও নিয়ন্ত্রণ আইনেই মৃত্যুদন্ডের বিধান রয়েছে, কিন্তু আজ সরকারদলীয় মাদকের মূলহোতাদের এতই ক্ষমতা যে আদালতও তাদের স্পর্শ করতে পারে না।

(লেখকের সূত্রে পাওয়া ছবি)

আওয়ামীলীগ সরকার জনগনের সাংবিধানিক মৌলিক অধিকার ভঙ্গ করছে, সংবিধানের ৩১ ও ৩২ অনুচ্ছেদের আইনগতভাবে জীবন রক্ষার অধিকার এর কথা বলা হয়েছে এবং ৩৫(৩) অনুচ্ছেদে অভিযুক্ত ব্যক্তিকে আদালতের মাধ্যমে বিচারের অধিকারের নিশ্চয়তা করা হয়েছে কিন্তু আওয়ামীলীগ সরকার মানুষের জীবনের অধিকার আইনগত পন্থা ব্যতীত হরন করছে, আদালতের ন্যায় বিচারের অধিকার হরন করছে যা আওয়ামীলীগের চিরাচরিত অবৈধ ক্ষমতার বহিঃপ্রকাশ।

বাংলাদেশের সকল আপামর জনগণের প্রতি কিছুসতর্কমূলক ব্যবস্থা গ্রহনের আহবান জানাচ্ছি আপনারা আপনাদের জাতীয় পরিচয়পত্র সাথে রাখুন আপনারা যে যেই পেশা বা ব্যবসার সাথে জড়িত তার কাগজপত্র প্রমাণাদি সাথে রাখুন- প্রয়োজনে নিরাপদ স্থানে জমা রাখুন যাতে করে আপনারা এই মাদক নির্মূলের বিচারবহিরভূত হত্যাকান্ডের সময় নিজেকে নিরাপদ রাখতে পারেন। এবং আইনশৃঙ্খলাবাহিনীর প্রতি আহবান আপনারা নিরপরাধ জনগনের জীবনের নিশ্চয়তা নিশ্চিত করুন কেননা মনে রাখবেন আপনাদের পরিবার মা বাবা স্ত্রী স্বজন সাধারন জনগনেরই অংশ। আওয়ামীলীগ সরকারকে বলতে চাই নিজের দলের ছত্রছায়ায় ক্ষমতাবান মাদকব্যবসার রাঘববোয়ালদের নিঃশেষ করুন, দেখবেন মাদকের মূল উৎপাটন হবে।

না হয় এদেশের জনগণ কখনোই আপনাদের ক্ষমা করবে না।

লেখকঃ এনামুল কবির

আপনার লেখা পোস্ট করুন মুক্তিফোরামে অথবা ইমেইল করুন muktiforum@gmail.com এ

 

All expressed views are of the author’s.

Posted by admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *